রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন

সোনালী ব্যাংকে ১ লক্ষ টাকা জমা করলেই পাবেন ৩ লক্ষ টাকা

এবার অভিনব একটি স্কিম নিয়ে এসেছে সোনালী ব্যাংক। এই স্কিমে বিস্তারিত....

দীপিকা পাডুকোন: কেন জিজ্ঞাসাবাদ করা হলো এই বলিউড তারকাকে

অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় বলিউড তারকা দীপিকা পাডুকোনকে বিস্তারিত....

মাইগ্রেনের প্রতিকার মিলবে ঘি’য়ে

মাইগ্রেনের সমস্যায় যারা ভুগেন তারাই জানেন, মাইগ্রেন সহ্য করা কতটা বিস্তারিত....

নামাজের পর ইসতেগফার কেন পড়বেন

নামাজের পর ইসতেগফার কেন পড়বেন? এর প্রথম উত্তর হলো- এটি বিস্তারিত....

সালমানের বাগানবাড়িতে জ্যাকলিন

শ্রীলঙ্কান মেয়ে জ্যাকলিন বলিউডের নামি নায়িকাদের মধ্যে একজন। বলিউড ভাইজান বিস্তারিত....

৯৯ বছর বয়সী ন্যায়বানের করোনা জয়

নভেল করোনাভাইরাস। চীনের উহানে প্রথমে শনাক্ত হওয়া এ ভাইরাস ছড়িয়ে বিস্তারিত....

পুরাতন খবর খুঁজুন

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

সোনালী ব্যাংকে ১ লক্ষ টাকা জমা করলেই পাবেন ৩ লক্ষ টাকা

এবার অভিনব একটি স্কিম নিয়ে এসেছে সোনালী ব্যাংক। এই স্কিমে টাকা জমা রাখলেও পাওয়া যাবে তিনগুণ মুনাফা! সোনালী ব্যাংকের ট্রিপল বেনিফিট স্কিম দিচ্ছে এই সুবিধাঠিক কীভাবে পাওয়া যাবে এই তিনগুণ বিস্তারিত....

বদলে যাওয়া যুবলীগের ১ বছর

বিশেষ প্রতিবেদক ক্যাসিনো কাণ্ডসহ নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িত ছিল যুবলীগ। এসব বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কালিমা মোচন করতে নড়েচড়ে বসেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের ঘোষণার সাথে সাথে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় বিতর্কিতদের। আটক করা হয় এক সময়ে রাজত্ব কায়েম করা সংগঠনটির বাঘা-বাঘা নেতাদের। এরপর থেকে লাগাতার অভিযান চালানো হয়। যেখানেই দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও মাদকের সন্ধান পাওয়া গেছে সেখানেই চলেছে অভিযান। ছাড় দেওয়া হয়নি কাউকে। শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে সুবিচার কায়েম করে দেশবাসীকে জানান দিয়েছেন আইন সবার জন্য সমান। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে অপরাধীর বড় পরিচয় অপরাধী। অপরাধী কোনো দলের হতে পারে না। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের সন্ধান পাওয়ার পর থেকে এ বিষয়টি প্রতিষ্ঠায় সরকার ছিল মরিয়া। যার ফলশ্রুতিতে রাজনীতি থেকে দূরে থাকা ক্লিন ইমেজ হিসেবে পরিচিত আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির জ্যেষ্ঠপুত্র পরিচিত শেখ ফজলে শামস পরশকে দেওয়া হয় ইমেজ পুররুদ্ধারের দায়িত্ব। মূলত হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতেই যুবলীগের শীর্ষ নেতৃত্বে বড় পরিবর্তন আনা হয়। ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর সপ্তম কংগ্রেসে চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশকে চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয় মাইনুল হোসেন খান নিখিলকে । নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তারা দুইজন যুবলীগকে পরিচ্ছন্ন সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে গেছেন । ক্যাসিনোকান্ড, পদ বাণিজ্য ও নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ায় যুবলীগের শীর্ষ পদে পরিবর্তন আনা হয়েছে। একটু সময় লাগলেও যুবলীগকে বিতর্কিতদের অভয়ারণ্য থেকে মুক্ত করতে পেরেছেন এ দুজন। জাতীয় কংগ্রেসের প্রায় একবছর পর ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ। এক সময় যুবলীগ মানেই ত্রাসের সংগঠন মনে করা হলেও বর্তমান কমিটিতে বিতর্কিতদের স্থান দেয়া হয়নি। কমিটিতে স্থান দেয়ার ব্যাপারে বিবেচনায় ছিল শিক্ষাগত যোগ্যতা, মেধা ও ত্যাগের বিষয়টি। এছাড়াও বহিরাগতদের ব্যাপারেও সতর্ক ছিল সংগঠনটি। কারো সুপারিশেও কাউকে পদায়ন করা হয়নি। বলা চলে শতভাগ নিরেপেক্ষতার সাথে যাচাই-বাছাই করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। যার ফলে হারানো ইমেজ পুনরুদ্ধারের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গিয়েছে সংগঠনটি। বিগত এক বছরে যুবলীগের কর্মকাণ্ড: হারানো ইমেজ ফেরাতে মরিয়া যুবলীগ চেয়ারম্যন পরশ ও সাধারণ সম্পাদক নিখিল দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই কাজ করে গেছেন অবিরাম। দায়িত্ব পাওয়ার পরপর মাথার উপর ঝেকে বসে করোনা। প্রাণঘাতী করোনায় সবাই যখন ভয়ে নতজানু অবস্থায় ছিল। সেসময়ে দুঃসাহসী ভূমিকায় ছিলেন যুবলীগ। করোনার ঝুঁকি মানুষের পাশে দায়িয়েছে সংগঠনটি। শুধুমাত্র রাজধানীতে তাদের কার্যক্রম সীমাদদ্ধ ছিল না। সারাদেশের তৃণমূল কর্মীদের সুসংগঠিত করে অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছে তারা। ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা দিয়েছেন তারা। সারাদেশে লকডাউনের সময় খাবার ও ওষুধের ব্যবস্থা করাও ছিল মানবিক সেবায় তাদের অতুলনীয় এক দৃষ্টান্ত। চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক-নার্সসহ স্বাস্থকর্মীদের জন্য রাজধানীর হাসপাতাল, জেলা উপজেলা হাসপাতাল, ক্লিনিক, স্বাস্থকেন্দ্রে সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ করেছে যুবলীগ। করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় প্রতিটি স্তরের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এরপরে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং বিষয় ছিল বিতর্কমুক্ত কমিটি গঠন করা। একটু সময় লাগলেও সে বিষয়েও তারা সফলতার পরিচয় দিয়েছে। নবগঠিত কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে শিক্ষক, অ্যাডভোকেট, ব্যবসায়ী, আইনজীবিসহ নানা পেশার যোগ্য, মেধাবী ও সৎ লোকদের। যার ফলে বিতর্ক অনেকটাই ঘুচে গেছে বলে মনে করছেন অনেকেই। এখন শুধু ভালো কাজ দিয়ে মানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায় স্থান করে নেওয়ার সময়। বিস্তারিত....
বিশেষ প্রতিবেদক ক্যাসিনো কাণ্ডসহ নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িত ছিল যুবলীগ। এসব বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কালিমা মোচন করতে নড়েচড়ে বসেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের ঘোষণার সাথে সাথে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় বিতর্কিতদের। আটক করা হয় এক সময়ে রাজত্ব কায়েম করা সংগঠনটির বাঘা-বাঘা নেতাদের। এরপর থেকে লাগাতার অভিযান চালানো হয়। যেখানেই দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও মাদকের সন্ধান পাওয়া গেছে সেখানেই চলেছে অভিযান। ছাড় দেওয়া হয়নি কাউকে। শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে সুবিচার কায়েম করে দেশবাসীকে জানান দিয়েছেন আইন সবার জন্য সমান। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে অপরাধীর বড় পরিচয় অপরাধী। অপরাধী কোনো দলের হতে পারে না। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের সন্ধান পাওয়ার পর থেকে এ বিষয়টি প্রতিষ্ঠায় সরকার ছিল মরিয়া। যার ফলশ্রুতিতে রাজনীতি থেকে দূরে থাকা ক্লিন ইমেজ হিসেবে পরিচিত আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির জ্যেষ্ঠপুত্র পরিচিত শেখ ফজলে শামস পরশকে দেওয়া হয় ইমেজ পুররুদ্ধারের দায়িত্ব। মূলত হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতেই যুবলীগের শীর্ষ নেতৃত্বে বড় পরিবর্তন আনা হয়। ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর সপ্তম কংগ্রেসে চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশকে চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয় মাইনুল হোসেন খান নিখিলকে । নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তারা দুইজন যুবলীগকে পরিচ্ছন্ন সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে গেছেন । ক্যাসিনোকান্ড, পদ বাণিজ্য ও নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ায় যুবলীগের শীর্ষ পদে পরিবর্তন আনা হয়েছে। একটু সময় লাগলেও যুবলীগকে বিতর্কিতদের অভয়ারণ্য থেকে মুক্ত করতে পেরেছেন এ দুজন। জাতীয় কংগ্রেসের প্রায় একবছর পর ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ। এক সময় যুবলীগ মানেই ত্রাসের সংগঠন মনে করা হলেও বর্তমান কমিটিতে বিতর্কিতদের স্থান দেয়া হয়নি। কমিটিতে স্থান দেয়ার ব্যাপারে বিবেচনায় ছিল শিক্ষাগত যোগ্যতা, মেধা ও ত্যাগের বিষয়টি। এছাড়াও বহিরাগতদের ব্যাপারেও সতর্ক ছিল সংগঠনটি। কারো সুপারিশেও কাউকে পদায়ন করা হয়নি। বলা চলে শতভাগ নিরেপেক্ষতার সাথে যাচাই-বাছাই করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। যার ফলে হারানো ইমেজ পুনরুদ্ধারের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গিয়েছে সংগঠনটি। বিগত এক বছরে যুবলীগের কর্মকাণ্ড: হারানো ইমেজ ফেরাতে মরিয়া যুবলীগ চেয়ারম্যন পরশ ও সাধারণ সম্পাদক নিখিল দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই কাজ করে গেছেন অবিরাম। দায়িত্ব পাওয়ার পরপর মাথার উপর ঝেকে বসে করোনা। প্রাণঘাতী করোনায় সবাই যখন ভয়ে নতজানু অবস্থায় ছিল। সেসময়ে দুঃসাহসী ভূমিকায় ছিলেন যুবলীগ। করোনার ঝুঁকি মানুষের পাশে দায়িয়েছে সংগঠনটি। শুধুমাত্র রাজধানীতে তাদের কার্যক্রম সীমাদদ্ধ ছিল না। সারাদেশের তৃণমূল কর্মীদের সুসংগঠিত করে অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছে তারা। ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা দিয়েছেন তারা। সারাদেশে লকডাউনের সময় খাবার ও ওষুধের ব্যবস্থা করাও ছিল মানবিক সেবায় তাদের অতুলনীয় এক দৃষ্টান্ত। চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক-নার্সসহ স্বাস্থকর্মীদের জন্য রাজধানীর হাসপাতাল, জেলা উপজেলা হাসপাতাল, ক্লিনিক, স্বাস্থকেন্দ্রে সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ করেছে যুবলীগ। করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় প্রতিটি স্তরের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এরপরে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং বিষয় ছিল বিতর্কমুক্ত কমিটি গঠন করা। একটু সময় লাগলেও সে বিষয়েও তারা সফলতার পরিচয় দিয়েছে। নবগঠিত কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে শিক্ষক, অ্যাডভোকেট, ব্যবসায়ী, আইনজীবিসহ নানা পেশার যোগ্য, মেধাবী ও সৎ লোকদের। যার ফলে বিতর্ক অনেকটাই ঘুচে গেছে বলে মনে করছেন অনেকেই। এখন শুধু ভালো কাজ দিয়ে মানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায় স্থান করে নেওয়ার সময়। ঢাকা মহানগর যুবলীগ কমিটিতেও স্থান পাবে না বিতর্কিতরা: সংগঠনটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আসন্ন মহানগর কমিটিতেও স্থান দেওয়া হবে না বিতর্কিতদের। যাদের গায়ে চুল পরিমাণও বিতর্কের দাগ আছে তাদের ব্যাপারেও সতর্ক যুবলীগ। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী তৃণমূলকে আরও বেশি শক্তিশালী করতে খুব শীঘ্রই বিভিন্ন জেলায়-উপজেলায় মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বিলুপ্ত করে দেয়া হবে নতুন কমিটি। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ বাংলাদেশের প্রথম যুব সংগঠন যা ১৯৭২ সালের ১১ই নভেম্বর প্রতিষ্ঠিত হয়। সংক্ষেপে যুবলীগ নামে সংগঠনটি বহুল প্রচলিত। এটি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুব অঙ্গসংগঠন। এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ছিলেন শেখ ফজলুল হক মনি। বিস্তারিত....
“আপনি কি অঙ্গীকার করছেন যে নির্বাচনের পরে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতার হস্তান্তর হবে?” আমেরিকার মত দেশের রাজনীতিতে ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্টকে এ প্রশ্ন করলে তার একটাই উত্তর পতে পারে বলেই মনে করা হয়। তা হলো: “হ্যাঁ”। আসলে নির্বাচনের পাঁচ সপ্তাহ আগে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে এমন বিস্তারিত....
মাইগ্রেনের সমস্যায় যারা ভুগেন তারাই জানেন, মাইগ্রেন সহ্য করা কতটা কষ্টকর! বেশিরভাগ মানুষ মাইগ্রেন থেকে কিছুটা স্বস্তির জন্য ওষুধের দিকে ঝুঁকেন। তবে ওষুধের বাইরেও কিছু প্রাকৃতিক উপায় রয়েছে যা আপনাকে মাইগ্রেন থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করতে পারে। দীর্ঘদিন থেকেই ঘি বিস্তারিত....
নামাজের পর ইসতেগফার কেন পড়বেন? এর প্রথম উত্তর হলো- এটি প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অন্যতম একটি আমল। হাদিসে উল্লেখ রয়েছে- ‘রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন নামাজের সালাম ফেরাতেন, তখন সর্ব প্রথম যে শব্দ তাঁর পবিত্র জবান থেকে বিস্তারিত....
শ্রীলঙ্কান মেয়ে জ্যাকলিন বলিউডের নামি নায়িকাদের মধ্যে একজন। বলিউড ভাইজান সালমান খানের প্রিয় নায়িকাও বটে। প্রায়ই সালমানের বাড়িতে যাওয়া আসা তার পারিবারিকভাবে।লকডাউন শুরু হওয়ায় টানা তিনমাস সালমান খানের বাগান বাড়িতে ছিলেন বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্দেজ। লকডাউনের আগে অর্পিতা খান শর্মার বিস্তারিত....
নভেল করোনাভাইরাস। চীনের উহানে প্রথমে শনাক্ত হওয়া এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের বিশ্বের ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে। এতে প্রতিনিয়ত মৃতের সংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও। বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) পর্যন্ত বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৮ লাখ ৫০হাজার ২২৮জন। মারা গেছেন বিস্তারিত....
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির সংসদ সদস্যরা বাজেট প্রত্যাখ্যানের নামে অনুমোদিত বাজেটের কপি ছিড়ে সংসদের প্রতি চরম অবমাননা করেছেন। বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) মন্ত্রীর সরকারি বাসভবন থেকে বাজেট পাস-পরবর্তী ভিডিও বার্তায় তিনি এ মন্তব্য করেন। ওবায়দুল বিস্তারিত....
📸 ফটো গ্যালারি

বদলে যাওয়া যুবলীগের ১ বছর

বিশেষ প্রতিবেদক ক্যাসিনো কাণ্ডসহ নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িত ছিল যুবলীগ। এসব বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কালিমা মোচন করতে নড়েচড়ে বসেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের ঘোষণার সাথে সাথে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় বিতর্কিতদের। আটক করা হয় এক সময়ে রাজত্ব কায়েম করা সংগঠনটির বাঘা-বাঘা নেতাদের। এরপর থেকে লাগাতার অভিযান চালানো হয়। যেখানেই দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও মাদকের সন্ধান পাওয়া গেছে সেখানেই চলেছে অভিযান। ছাড় দেওয়া হয়নি কাউকে। শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে সুবিচার কায়েম করে দেশবাসীকে জানান দিয়েছেন আইন সবার জন্য সমান। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে অপরাধীর বড় পরিচয় অপরাধী। অপরাধী কোনো দলের হতে পারে না। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের সন্ধান পাওয়ার পর থেকে এ বিষয়টি প্রতিষ্ঠায় সরকার ছিল মরিয়া। যার ফলশ্রুতিতে রাজনীতি থেকে দূরে থাকা ক্লিন ইমেজ হিসেবে পরিচিত আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির জ্যেষ্ঠপুত্র পরিচিত শেখ ফজলে শামস পরশকে দেওয়া হয় ইমেজ পুররুদ্ধারের দায়িত্ব। মূলত হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতেই যুবলীগের শীর্ষ নেতৃত্বে বড় পরিবর্তন আনা হয়। ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর সপ্তম কংগ্রেসে চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশকে চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয় মাইনুল হোসেন খান নিখিলকে । নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তারা দুইজন যুবলীগকে পরিচ্ছন্ন সংগঠন হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে গেছেন । ক্যাসিনোকান্ড, পদ বাণিজ্য ও নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ায় যুবলীগের শীর্ষ পদে পরিবর্তন আনা হয়েছে। একটু সময় লাগলেও যুবলীগকে বিতর্কিতদের অভয়ারণ্য থেকে মুক্ত করতে পেরেছেন এ দুজন। জাতীয় কংগ্রেসের প্রায় একবছর পর ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ। এক সময় যুবলীগ মানেই ত্রাসের সংগঠন মনে করা হলেও বর্তমান কমিটিতে বিতর্কিতদের স্থান দেয়া হয়নি। কমিটিতে স্থান দেয়ার ব্যাপারে বিবেচনায় ছিল শিক্ষাগত যোগ্যতা, মেধা ও ত্যাগের বিষয়টি। এছাড়াও বহিরাগতদের ব্যাপারেও সতর্ক ছিল সংগঠনটি। কারো সুপারিশেও কাউকে পদায়ন করা হয়নি। বলা চলে শতভাগ নিরেপেক্ষতার সাথে যাচাই-বাছাই করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। যার ফলে হারানো ইমেজ পুনরুদ্ধারের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গিয়েছে সংগঠনটি। বিগত এক বছরে যুবলীগের কর্মকাণ্ড: হারানো ইমেজ ফেরাতে মরিয়া যুবলীগ চেয়ারম্যন পরশ ও সাধারণ সম্পাদক নিখিল দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই কাজ করে গেছেন অবিরাম। দায়িত্ব পাওয়ার পরপর মাথার উপর ঝেকে বসে করোনা। প্রাণঘাতী করোনায় সবাই যখন ভয়ে নতজানু অবস্থায় ছিল। সেসময়ে দুঃসাহসী ভূমিকায় ছিলেন যুবলীগ। করোনার ঝুঁকি মানুষের পাশে দায়িয়েছে সংগঠনটি। শুধুমাত্র রাজধানীতে তাদের কার্যক্রম সীমাদদ্ধ ছিল না। সারাদেশের তৃণমূল কর্মীদের সুসংগঠিত করে অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছে তারা। ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা দিয়েছেন তারা। সারাদেশে লকডাউনের সময় খাবার ও ওষুধের ব্যবস্থা করাও ছিল মানবিক সেবায় তাদের অতুলনীয় এক দৃষ্টান্ত। চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক-নার্সসহ স্বাস্থকর্মীদের জন্য রাজধানীর হাসপাতাল, জেলা উপজেলা হাসপাতাল, ক্লিনিক, স্বাস্থকেন্দ্রে সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ করেছে যুবলীগ। করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় প্রতিটি স্তরের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এরপরে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং বিষয় ছিল বিতর্কমুক্ত কমিটি গঠন করা। একটু সময় লাগলেও সে বিষয়েও তারা সফলতার পরিচয় দিয়েছে। নবগঠিত কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে শিক্ষক, অ্যাডভোকেট, ব্যবসায়ী, আইনজীবিসহ নানা পেশার যোগ্য, মেধাবী ও সৎ লোকদের। যার ফলে বিতর্ক অনেকটাই ঘুচে গেছে বলে মনে করছেন অনেকেই। এখন শুধু ভালো কাজ দিয়ে মানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায় স্থান করে নেওয়ার সময়। বিস্তারিত....
themesba-lates1749691102